• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০১৯, ৭ চৈত্র ১৪২৫

ব্রেক্সিট ইস্যুতে হারের পর যে সাতটি পথে হাঁটতে পারে ব্রিটেন

ব্রেক্সিট ইস্যুতে হারের পর যে সাতটি পথে হাঁটতে পারে ব্রিটেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক১৩ মার্চ ২০১৯, ১২:৫৬পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে'র ব্রেক্সিট পরিকল্পনা আবারও প্রত্যাখ্যান করেছে পার্লামেন্ট সদস্যরা। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার পার্লামেন্টে ভোটাভুটিতে দ্বিতীয়বারের মতো বাতিল হয়ে যায় মে'র খসড়া চুক্তি। খবর বিবিসির।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে দীর্ঘ দেন-দরবার করে জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার খসড়া চুক্তি চূড়ান্ত করেছিলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে। ওই চুক্তির প্রতি সমর্থন আদায়ে দ্বিতীয়বারের মতো তা মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সংসদের সামনে পেশ করেছিলেন তিনি।

কী প্রভাব পড়তে পারে?

টেরিজা মের প্রস্তাব দ্বিতীয় দফায় ভেস্তে যাওয়ার পর, ব্রিটেনের অর্থনীতিতে এর কী প্রভাব পড়বে জানতে চাইলে ব্রিটেনের সোয়ানসি ইউনিভার্সিটির শিক্ষক রোযেন আজাদ চৌধুরী বলেন, এটা নির্ভর করবে ব্রিটেন কোনো ডিল বা চুক্তি নিয়ে বেরোতে চায় কি-না তার ওপর। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার আরেক দফা ভোট হবে।

আজাদ চৌধুরী মনে করেন, পুরো বিষয়টা এখন নির্ভর করবে ইউরোপীয় ইউনিয়নের ওপর। সামনে ইইউ পার্লামেন্ট নির্বাচন। তারা হয়তো দুই বছরের জন্য সময় দেবে।

তিনি বলেন, বাজারে প্রচণ্ড অনিশ্চয়তা দেখা দেবে। দেখবেন যে, আজই ডলার ও ইউরোর বিপরীতে পাউন্ডের ব্যাপক পতন হয়েছে। যুক্তরাজ্যে বিনিয়োগ গত একবছরে অনেক কমে গেছে। অনিশ্চয়তা যদি আরও বিরাজ করে অর্থনীতির জন্য সেটি খুবই খারাপ অবস্থা হবে।

এক গবেষণার তথ্য তুলে ধরে আযাদ চৌধুরী বলেন, গবেষণা দেখা গেছে যে, কোনো ডিল (চুক্তি) নিয়ে যদি না বের হয়, তাহলে যুক্তরাজ্যের জিডিপি ৮% নেমে যাবে।

ব্রিটেনের সামনে এখন পথ কী?

১. চুক্তিহীন ব্রেক্সিট

ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছেড়ে গেলে ইইউভুক্ত দেশগুলোতে বসবাসরত ব্রিটিশ নাগরিকদের জন্য ব্রিটেন একটি সুবিধাজনক চুক্তি করতে চাইছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোতে ব্রিটিশ ব্যবসায়ী ও কোম্পানিগুলো কী ধরনের সুবিধা পাবে - সেটিও একটি বিষয়।

তবে ব্রিটেন কোনো চুক্তি বা ডিল চায় কি-না সেটা জানা যাবে ১৩ মার্চের পর।

২. প্রধানমন্ত্রীর খসড়া চুক্তির ওপর আরেক দফা ভোট

প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে দ্বিতীয় দফায় হেরে গেলেও সবচেয়ে সাদাসিধে উপায় হবে হয়তো হাউস অব কমন্সে তার খসড়া চুক্তিটি আরেক দফা ভোটাভুটিতে নিয়ে যাওয়া।

৩. পুনরায় আলোচনা

ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে সরকার একেবারে নতুন করে আলোচনার প্রস্তাব দিতে পারে।

৪. আবার গণভোট

পুনরায় গণভোটের আয়োজন করার প্রয়োজনীয়তা দেখা দিতে পারে। নতুন করে গণভোটের জন্য আইনে নতুন সংযোজন প্রয়োজন হবে এবং কারা ভোটার হতে পারবে সেটা নির্ধারণ করতে হবে।

৫. সাধারণ নির্বাচন আহ্বান

টেরিজা মে এই অচলাবস্থা নিরসনে সাধারণ নির্বাচনের আহ্বান করতে পারেন। তবে নির্বাচন আহ্বান করার ক্ষমতা তার নেই। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের আগেই নির্বাচনের জন্য সংসদ সদস্যদের ভোটের আহ্বান জানাতে পারেন। সেজন্য দুই-তৃতীয়াংশ এমপির সমর্থন প্রয়োজন হবে।

৬. পুনরায় অনাস্থা ভোট

যেকোনো সময় আরেক দফা অনাস্থা ভোটের আয়োজন করা যেতে পারে। আইন অনুসারে, ২০২২ সালে নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও সরকারের প্রতি আস্থা-অনাস্থা প্রশ্নে এমপিদের ভোট যেকোনো সময় হতে পারে।

৭. নো ব্রেক্সিট

ইউরোপীয় আদালতের নির্দেশনা অনুসারে ব্রিটেন চাইলে এককভাবে ব্রেক্সিট বাতিল করতে পারবে।

 

 

টাইমস/এএস/এসআই

নারী পথচারীকে ধাক্কা দিয়ে পালানোর সময় আবরারকে চাপা দেয় বাসচালক

নারী পথচারীকে ধাক্কা দিয়ে পালানোর সময় আবরারকে চাপা দেয় বাসচালক

বিইউপি ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরীকে চাপা দেয়ার আগে সুপ্রভাত পরিবহনের বাসের চালক বাঁশতলায় এক নারী পথচারীকে ধাক্কা দিয়েছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ। পুলিশ জানায়, বাঁশতলায় ওই নারীকে ধাক্কা দিয়ে পালানোর সময় যমুনা ফিউচার পার্কের সামনের সড়কে এসে আবার আবরারকে চাপা দেয় বাসটি।

সাত দিনের আলটিমেটাম দিয়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন স্থগিত

সাত দিনের আলটিমেটাম দিয়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন স্থগিত

রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে প্রগতি সরণীতে বাসচাপায় বিইউপির শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরী নিহতের ঘটনায় সাত দিনের আলটিমেটাম দিয়ে আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। বুধবার সন্ধ্যা ছয়টার পর রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার সামনের সড়কে এসে তারা এই ঘোষণা দেন।

৩৭তম বিসিএস: নিয়োগ পেলেন এক হাজার ২২১ ক্যাডার

৩৭তম বিসিএস: নিয়োগ পেলেন এক হাজার ২২১ ক্যাডার

অবশেষে ৩৭তম বিসিএসে প্রতীক্ষার অবসান হলো। ১ হাজার ২২১ জনকে বিভিন্ন ক্যাডারে নিয়োগের সুপারিশ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। বুধবার বিকেলে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। এর মাধ্যমে এই বিসিএসের অপেক্ষার অবসান হলো। এখন এই ক্যাডারদের বিভিন্ন স্থানে পদায়ন শুরু হবে।

জাতীয়

সিরাজগঞ্জে হানিফ পরিবহনের দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত চার

সিরাজগঞ্জে হানিফ পরিবহনের দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত চার

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় হানিফ পরিবহনের দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে চারজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও ১৫ জন। বুধবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম পাড়ে উপজেলার ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের সয়দাবাদ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার ওসি সৈয়দ সহিদ আলম জানান, বিকেলে হানিফ পরিবহনের একটি বাস ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গের দিকে যাচ্ছিল।

জাতীয়

সাত দিনের রিমান্ডে সুপ্রভাত বাসের চালক

সাত দিনের রিমান্ডে সুপ্রভাত বাসের চালক

যমুনা ফিউচার পার্কের সামনের প্রগতি সরণিতে সড়ক দুর্ঘটনায় শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরী নিহত হওয়ার ঘটনায় করা মামলায় গ্রেপ্তার সুপ্রভাত পরিবহনের বাসের চালক সিরাজুল ইসলামের সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত তার রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

জাতীয়

আবরারের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা প্রদানের নির্দেশ

আবরারের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা প্রদানের নির্দেশ

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরীকে সাত দিনের মধ্যে ১০ লাখ টাকা দিতে সুপ্রভাত পরিবহন কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। বুধবার এক রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ নির্দেশ দেন।

বিনোদন

সাড়ে চার লাখ টাকা হোটেল বিল না দিয়ে পালালেন অভিনেত্রী পূজা

সাড়ে চার লাখ টাকা হোটেল বিল না দিয়ে পালালেন অভিনেত্রী পূজা

ভারতীয় অভিনেত্রী পূজা গান্ধীকে নিয়ে যেন বিতর্কের শেষ নেই। এবার তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, বেঙ্গালুরুর বিলাসবহুল হোটেলে বিল না দিয়েই চলে পালিয়ে গেছেন তিনি। ভারতীয় গণমাধ্যমের খবর, পূজা বেশ কয়েকদিন বেঙ্গালুরুর হোটেলে ছিলেন। হোটেলে বিল বাড়তেই তিনি সবার চোখ এড়িয়ে হোটেল ছেড়ে চলে যান। হোটেল ম্যানেজমেন্ট এ কথা জানতে পেরে স্থানীয় থানায় এই অভিনেত্রীর নামে অভিযোগ দায়ের করেন।

জাতীয়

পার্বত্য এলাকায় উল্লেখযোগ্য যত হত্যাকাণ্ড

পার্বত্য এলাকায় উল্লেখযোগ্য যত হত্যাকাণ্ড

পাহাড়ে সন্ত্রাসী গ্রুপের অপতৎপরতায় জীবনহানি সাধারণ ঘটনায় পরিণত হয়েছে। পার্বত্য শান্তিচুক্তির পর পাহাড়ে শান্তি ফিরে আসবে- এমনটিই আশা করা হয়েছিল। কিন্তু পাহাড়ি সংগঠনগুলোর অন্তঃকোন্দল সেই সম্ভাবনাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলেছে। পাহাড়ে সংঘাত দানা বেঁধে ওঠে ১৯৭২ সালে। এ সময় পাহাড়িদের রাজনৈতিক অধিকার প্রতিষ্ঠার নামে গড়ে ওঠে মানবেন্দ্র লারমার নেতৃত্বে জনসংহতি সমিতি নামের সংগঠন। ’৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর জিয়াউর রহমান সরকারের কিছু কর্মকাণ্ড পাহাড়ে অশান্তির দাবানল সৃষ্টি করে। ’৯৭ সালে সম্পাদিত শান্তিচুক্তির আওতায় পার্বত্য তিন জেলায় শান্তি ফিরে আসার সম্ভাবনা দেখা দেয়। কিন্তু জনসংহতি সমিতির একাংশ শান্তিচুক্তির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে ইউপিডিএফ নামের সংগঠন গড়ে তোলায় পাহাড়ে প্রত্যাশিত শান্তি ফিরে আসেনি।

আন্তর্জাতিক

লুফে নিয়ে আগুন থেকে তিন শিশুকে বাঁচাল পুলিশ

লুফে নিয়ে আগুন থেকে তিন শিশুকে বাঁচাল পুলিশ

একটি বহুতল ভবনে আগুন লাগলে তৃতীয় তলার একটি ফ্লাটে আটকা পরে তিন শিশু। ফায়ার সাভির্সের সহায়তা পৌছাঁতে পৌছাঁতে হয়তো মারাই যেত তারা। কোনো উপায় না দেখে পুলিশ কর্মকর্তাদের কথা মতো একে এক নিচে ঝাপ দেয় তারা। আর মাটিতে দাঁড়িয়ে তাদের লুফে নেন সেই পুলিশ কর্মকর্তারা। খবর এনডিটিভির।     মঙ্গলবার এই অসাধারণ ঘটনাটি ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রের আইওয়া অঙ্গরাজ্যের রাজধানী দেস মইনে।